নরসিংদীতে স্বামীর সহায়তায় গণধর্ষণের শিকার গৃহবধূ

অপরাধ ও দুর্নীতি

নরসিংদীতে স্বামীর সহায়তায় এক গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল মঙ্গলবার গভীর রাতে শহরের চৌয়ালা এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় আজ বুধবার বিকেলে ওই গৃহবধূ নরসিংদী সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে বিকেলেই পুলিশ গৃহবধূর স্বামীসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- গৃহবধূর স্বামী শিবপুর উপজেলার কুতুবেরটেক গ্রামের কফিল উদ্দিনের ছেলে রিপন মিয়া(৪১), রায়পুরা
উপজেলার হাসান আলীর ছেলে আমির হোসেন (৪৭) ও একই উপজেলার মৃত কালু মিয়ার ছেলে ফরিদ উদ্দিন (৪৯)। তাঁরা সবাই নরসিংদী পৌর শহরের চৌয়ালা এলাকার খোকন মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে বিভিন্ন পাওয়ারলুমে চাকরি করে।

পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে রিপন মিয়ার সাথে তার স্ত্রীর কথা কাটাকাটি হয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে রিপন তার স্ত্রীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ গণধর্ষণের হুমকি দেয়। পরে রাত ৯টার দিকে রিপন তার পাশ্ববর্তী ভাড়াটিয়া আমির হোসেন ও ফরিদ উদ্দিনকে সঙ্গে নিয়ে নিজ ঘরে প্রবেশ করেন। এক পর্যায়ে স্ত্রীর হাতমুখ বেঁধে পর্যায়ক্রমে তাঁরা তিনজন মিলে ধর্ষণ করেন। রাত ৯টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত এ নির্যাতন চালানো হয়। ভোরে ধর্ষকরা গৃহবধূকে ফেলে রেখে চলে যায়। পরে সকালের দিকে গৃহবধূর মুখ বাঁধা অবস্থায় গোঙরানির শব্দ শোনে বাড়ির অন্যান্য ঘরের ভাড়াটিয়াসহ মালিক ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় গৃহবধূ বাদী হয়ে নরসিংদী সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। পরে আজ বিকেলেই পুলিশ শহরের চৌঁয়ালা এলাকা থেকে অভিযুক্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করে।

এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সৈয়দুজ্জামান বলেন, ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ থানায় এসে বিষয়টি আমাকে অবগত করলে আমি তৎক্ষনাৎ অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারে ব্যবস্থা গ্রহণ করি। স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া-বিবাদের জের ধরে গৃহবধূর স্বামী তাঁর সহযোগীদের নিয়ে এ গণধর্ষণের ঘটনা ঘটায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *