‘নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনই ভবিষ্যৎ কৃষির প্রধান চ্যালেঞ্জ’

ময়মনসিংহ

জলবায়ু পরিবর্তন, প্রাণি ও উদ্ভিদের রোগ বৃদ্ধি, উৎপাদন ক্ষমতার সীমাবদ্ধতা, নিরাপদ খাদ্য ও খাদ্য নিরাপত্তা রক্ষা করাই হবে ভবিষ্যৎ কৃষির প্রধান চ্যালেঞ্জ। বাংলাদেশে কৃষি ভিত্তিক নীতিমালা থাকলে তার বাস্তবায়ন করাটাও হবে আমাদের ভবিষ্যৎ কৃষির অন্যতম চ্যালেঞ্জ।

bauশনিবার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) দুদিনব্যাপী এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব বলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর।

প্রগ্রেসিভ অ্যাগ্রিকালচারিস্টের আয়োজনে ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন চ্যালেঞ্জেজ ফর ফিউচার অ্যাগ্রিকালচার (আইসিসিএফএ.) শীর্ষক সম্মেলনটি সকাল ১০ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ নজরুল ইসলাম সম্মেলন কক্ষে ওই কর্মশালার উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়। বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নাইজেরিয়া, সুদান, থাইল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ইথিওপিয়া, চায়নাসহ বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় অর্ধশতাধিক বিজ্ঞানী ও গবেষক এতে অংশ নিচ্ছেন। কর্মশালার বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আল-মামুনের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর। সম্মানিত অতিথি হিসেবে সাবেক সচিব অধ্যাপক ড. জহিরুল করিম, বিশেষ অতিথি হিসেবে হিসেবে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের সভাপতি কৃষিবিদ এম এম সালেহ উপস্থিত ছিলেন। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মাহ্মুদ হোসেন সুমন।

অনুষ্ঠানে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপনের সময় অস্ট্রেলিয়ার চার্লেস স্ট্রার্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. পিটার ওয়াইন বলেন, কৃষি দ্রব্য উৎপাদনে যেভাবে এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার বেড়ে যাচ্ছে তাতে হুমকির মুখে দাড়িয়েছে ভবিষ্যৎ কৃষি। বিভিন্ন রোগের জীবাণু মিশে যাচ্ছে খাদ্যদ্রব্যের সাথে। এতে কমে যাচ্ছে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। প্রয়োজন পরিকল্পিত ও সঠিক উপায়ে পরিমাণমত এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার। একইসাথে খুঁজে বের করতে হবে অ্যান্টিবায়োটিকের বিকল্প। তবেই সময়োপযোগী কৃষি সম্ভব।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *