একদিনেই বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়া যাবে উন্নয়ন মেলায়

রাজনীতি

‘বৈদ্যুতিক সংযোগের জন্য অফিসে গেলে ২ থেকে ৩ মাস সময় লাগে। শুনেছি উন্নয়ন মেলায় নাকি আবেদন করার সঙ্গে সঙ্গে ঘরে বিদ্যুৎ যায়। তাই প্রয়োজনীয় কাগজ নিয়ে এসেছি। দ্রুত বিদ্যুৎ পাওয়ার জন্য আবেদন জমা দিয়েছি। আবেদনের ১ ঘণ্টার মধ্যে বাড়িতে বিদ্যুৎ পেয়েছি। শেখের বেটি (শেখ হাসিনা) আমাদের বিদ্যুৎ দেছে। তারে দোয়া করি আল্লাহ্ তারে হাজার বছর বাঁচিয়ে রাখুন।’

৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলায় সরকারি সেবা নিতে এসেছিলেন শারীরিক প্রতিবন্ধী জাকির ফকির, সেখানেই এসব কথা বলে তিনি। পটুয়াখালী সদর উপজেলার মাদারবুনিয়া ইউনিয়নের হাজিখালী গ্রামের বাসিন্দা তিনি।

উন্নয়ন মেলায় পটুয়াখালী পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি ও বাংলাদেশ পল্লীবিদ্যুতায়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে বিদ্যুৎসংযোগ প্রাপ্তির আবেদন গ্রহণ-সংযোগ প্রদান ও বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ করা হচ্ছে। মেলায় অংশগ্রহণকারী সরকারের এসব দফতর তাদের সেবা-সংক্রান্ত আবেদন সরাসরি গ্রহণ করছে।

পটুয়াখালী পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী মনহর কুমার বিশ্বাস জানান, ওয়ান স্টপ সার্ভিসের আওতায় বিদ্যুৎসংযোগ প্রাপ্তির আবেদন গ্রহণ-জামানতের টাকা গ্রহণ ও একই দিনে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করা হচ্ছে। আজ দু’জন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে আমাদের নিজেদের অর্থায়নে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করা হয়েছে।

বাংলাদেশ পল্লীবিদ্যুতায়ন বোর্ডের নিবার্হী প্রকৌশলী মো. সেলিম মিয়া বলেন, শেখ হাসিনার উদ্যোগে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছি আমরা। যারা ইতোমধ্যে সংযোগ পেয়েছেন তারা ভাগ্যবান। যারা পাননি তারা কাউকে কোনো অর্থ প্রদান করবেন না। আমরা বিনামূল্যে আপনাদের ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেবো।

একইভাবে নয়ন মৃধা মেলায় এসেছেন শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য। তিনি বলেন, বিআরটিএর সেবা পেতে রীতিমত উপচে পড়া ভিড় ছিল। তারপরও সেবা পেয়েছি। ভালো লাগছে।

জাকির ফকির ও নয়ন মৃধার মতো অনেকেই উন্নয়ন মেলায় আসছেন সরকারি সেবা নিতে বা সেবা সম্পর্কে তথ্য নিতে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পটুয়াখালী ডিসি স্কয়ারে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলা। শেষ হবে শনিবার।

এ মেলায় ওয়ান স্টপ সার্ভিসের আওতায় বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরএটিএ) পক্ষ থেকে গাড়ি নিবন্ধন ও ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন, পাসপোর্ট অধিদফতরের মাধ্যমে সরাসরি পাসপোর্টের আবেদন গ্রহণ ও ফি সংগ্রহসহ ২০১৯ সালে হজে যেতে ইচ্ছুকদের জন্য স্পট রেজিস্ট্রেশনের সেবা প্রদান করছে ইসলামী ফাউন্ডেশ।

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরএটিএ) জেলা মোটরযান পরিদর্শক সাইফুর রহমান জানান, এখানে ‘ওয়ান স্টপ’ সার্ভিসের মাধ্যমে গাড়ির রেজিস্ট্রেশন, শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স ও ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন সেবা প্রদান করছি।

ড্রিম এডুকেশনের পরিচালক মো. জাহিদুল ইসলাম রানা জানান, আমাদের এখান থেকে উচ্চ শিক্ষায় বিদেশে ভর্তি ও ভিসা প্রসেসিং কাজ করা হয়। মেলায় এ পর্যন্ত মোট ২২ জন শিক্ষার্থী আমাদের কাছে রেজিস্ট্রেশন করিয়েছেন।

মেলায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মোট ১২২টি স্টল রয়েছে। এখানে সরকারি বিভিন্ন দফতর এবং বেসরকারি সংস্থা এসব স্টল দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *